শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

হেফাজতের দ্বিতীয় শীর্ষনেতা কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির আবদুল কাদের কারাগারে

প্রকাশিত: শুক্রবার, এপ্রিল ৩০, ২০২১

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: হেফাজতের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির অধ্যাপক আহমদ আবদুল কাদেরকে বিরুদ্ধে ২০১৩ সালের রাজধানীর পল্টন থানার দায়ের করা নাশকতার মামলায় রিমান্ডে শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) পাঁচ দিনের রিমান্ড আসামিকে আদালতে হাজির করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশ তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। বিকেলে শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ইয়াসমিন আরা এ আদেশ দেন।

গত ২৫ এপ্রিল ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালত আসাম পুলিশের জিজ্ঞেসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ তাকে গত শনিবার ২৪ এপ্রিল সন্ধ্যায় রাজধানীর আগারগাঁও থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেন ঢাকা মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মো. মাহবুব আলম। তিনি বলেন, রাজধানীর আগারগাঁও এলাকা থেকে সন্ধ্যায় হেফাজতের নায়েবে আমির অধ্যাপক আহমদ আবদুল কাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

গত ২৬ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের দিন থেকে হেফাজত কর্মীরা দেশের বিভিন্ন স্থানে যে তাণ্ডব চালিয়েছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে গত ১১ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া গ্রেফতার অভিযানে হেফাজতের যে নেতাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে, তাদের মধ্যে আহমাদ আবদুল কাদেরই সবচেয়ে বড়। সংগঠনের আমির জুনায়েদ বাবুনগরীর অবস্থানই কেবল নায়েবে আমিরের ওপরে।

জানা গেছে, ২০১৩ সালে শাপলা চত্বরে অগ্নিসংযোগ-ভাঙচুরের ঘটনার মামলা ও সম্প্রতি মোদিবিরোধী সহিংসতার মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে, হেফাজতে ইসলামের ১৫ জনের মত নেতাকে গ্রেফতার করেছে ডিবি। তবে যেসব নেতাদেরকে এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের সবাইকে সাম্প্রতিক সহিংসতা ও ২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বরে অবস্থানকে ঘিরে তাণ্ডবের পুরনো মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হচ্ছে। হেফাজতের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককেও এরই মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে। বর্তমানে রিমান্ডে আছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হাটহাজারীসহ বিভিন্ন স্থানে সম্প্রতি ব্যাপক সহিংসতার পর গ্রেপ্তার অভিযান এবং নতুন-পুরোনো মামলায় নেতাদের গ্রেপ্তার, মামুনুল হক নিয়ে বিতর্কসহ নানামুখী চাপে দিশেহারা হেফাজতের ইসলামের শীর্ষ নেতৃত্ব।।

আরো পড়ুন