রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩

কাজীর দেউড়িতে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ

শামীম, শাহাদাত বক্কর সহ আসামী ১৩শ, যারা আছেন তালিকায়

প্রকাশিত: মঙ্গলবার, জানুয়ারী ১৭, ২০২৩


নিজস্ব প্রতিবেদক :

নগরীর কোতোয়ালি থানার কাজীর দেউরি এলাকায় পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় কেন্দ্রীয় বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন ও সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্করসহ ২৫৮ জনের উল্লেখ ও অজ্ঞাত ১৩ শত জনকে আসামি করে চারটি মামলায় করা হয়েছে।

আজ সোমবার (১৬ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে কোতোয়ালি থানায় তিনজন পুলিশ কর্মকর্তা বাদী হয়ে মামলাগুলো দায়ের করা হয়। চারটি মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেন কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহিদুল কবির।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) ট্রাফিক দক্ষিণ বিভাগের সার্জেন্ট চয়ন নাইড়ু বাদী হয়ে ৫৩ জনের উল্লেখ ও অজ্ঞাত ২০০ থেকে ২৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে। সিআরবি পুলিশ ফাঁড়ীর ইনচার্জ উপপরির্দশক (এসআই) বাদী হয়ে ৯৬ জনের উল্লেখ ও অজ্ঞাত ৪০০ থেকে ৫০০ জনকে আসামি করে দুইটি মামলা করা হয়েছে। চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সদস্যদের ওপর হামলার ঘটনায় মিরসরাই থানার উপপরির্দশক (এসআই) আল আমিন বাদী হয়ে ৫০ জনের উল্লেখ ও অজ্ঞাত ৪০ থেকে ৫০ জনকে আসামি করে একটি মামলা করা হয়েছে।

এ চার মামলায় সিনিয়র যে সব নেতারা আসামী হয়েছেন। তার মধ্যে পুলিশের সার্জেন্ট চয়ন নাইড়ুর দায়ের করা মামলায় সিনিয়র নেতার মধ্যে আছেন, উত্তর জেলা বিএনপির আহবায়ক গোলাম আকবর খন্দকার, নগর বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক এম এ আজিজ, মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, এস এম সাইফুল আলম, আব্দুল মান্নান, কাজী বেলাল উদ্দিন, ইয়াসিন চৌধুরী লিটন, বিভাগীয় শ্রমিক দলের সভাপতি এ.এম নাজিম উদ্দিন, নগর বিএনপির সাবেক সহসাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন, মোঃ আব্দুল হালিম শাহ আল, দক্ষিণ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা ইকবাল হায়দার চৌধুরী, পটিয়ার বিএনপি নেতা আবুল হোসেন বাবুল, নগর যুবদলের আইন সম্পাদক নাজমুল ছিদ্দিকীসহ ৩৪ জনের উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ২০০/২৫০ জনকে আসামী করা হয়েছে।

সিআরবি পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এস আই আজাদ হোসেনের দায়েরকৃত দুই মামলার মধ্যে বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা মামলায় আসামী আছেন সিনিয়র নেতাদের মধ্যে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম, নগর বিএনপির আহবায়ক ডাঃ শাহাদাত হোসেন, সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর, যুগ্ম আহবায়ক এম এ আজিজ, মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, আর ইউ চৌধুরী শাহীন, নাজিমুর রহমান, এস এম সাইফুল ইসলাম, আব্দুল মান্নান, কাজী বেলাল উদ্দিন, ইয়াসিন চৌধুরী লিটন, বিভাগীয় শ্রমিক দলের সভাপতি এ.এম নাজিম উদ্দিন, নগর যুবদলের সভাপতি মোশারফ হোসেন দিপ্তী, সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহেদ, সিনিয়র সহসভাপতি ইকবাল হোসেন, সহসভাপতি ফজলুল হক সুমন, নাছির উদ্দিন চৌধুরী নাছিম, পাঁচলাইশ থানা যুবদলের আহবায়ক মোঃ আলী সাকি, নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচ এম রাশেদ সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলু, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আলী মর্তুজা খান, জমির উদ্দীন নাহিদ, পাথরঘাটার সাবেক কাউন্সিলর ইসমাইল হোসেন বালি, ছাত্রদলের সদস্য সচিব শরিফুল ইসলাম তুহিন, যুগ্ম আহবায়ক এইচ এম এম আসিফ চৌধুরী লিমন, মহিলা দলের সভাপতি মনোয়ারা বেগম মনি, সাধারণ সম্পাদক জেলি চৌধুরী, বিএনপি নেতা সাদেকুর রহমান রিপন, ফিরিঙ্গীবাজার ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি আকতার হোসেন খান, হকার্স নেতা আব্দুল বাতেন, ১৯ নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি তাহের জামান, ১৭নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর আরিফুল ইসলাম ডিউক, ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি হাজী মোহাম্মদ এমরান, নগর যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদুল হক বাদশা, মোহরা ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি জানে আলম জিকু, ছাত্রদলের সাইফুল প্রঃ বার্মা সাইফুল, দক্ষিণ জেলা কৃষক দলের সৈয়দ সাইফুদ্দীন, ৫নং ওয়ার্ড ওয়ার্ড যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক জয়নাল আবেদীন, নগর বিএনপির সদস্য ইয়াসিন, ৩৩ নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি সোহেল, আবু নাঈম সহ সাধারণ সম্পাদক মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দল, নগর বিএনপির উপদেষ্টা নবাব খাঁন, সানোয়ার কাদের চৌধুরী (সানি), এয়াকুব খান বাবু, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র সদস্য জামাল হোসেন, ১৯ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর ইয়াছিন চৌধুরী আশু, দক্ষিণ জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মো. আজগর, রফিকুল ইসলাম সহ সভাপতি ১৫নং বাগমনিরাম ওয়ার্ড বিএনপি, মোঃ সেলিম রিয়াজউদ্দিন বাজার কর্মচারী দলের সাধারণ সম্পাদক, নগর বিএনপির সাবেক অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমান স্বপনসহ ৯৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ৪০০/৫০০ জন। এসআই আজাদ হোসের দায়েরকৃত আরেকটি মামলায় আসামী করা হয়েছে তাদের।

মীরসরাই থানার এসআই আল আমিনের দায়ের করা আরেক মামলায় আসামী করা হয়েছে নগর বিএনপির আহবায়ক ডাঃ শাহাদাত হোসেন, সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর, শাহিদুল ইসলাম চৌধুরী আহবায়ক মীরসরাই উপজেলা বিএনপি, নুরুল আমিন চেয়ারম্যান যুগ্ম আহবায়ক চট্রগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপি, মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহবায়ক মীরসরাই পৌরসভা বিএনপি, মনোয়ার হোসেন শাওন সদস্য সচিব মীরসরাই থানা যুবদল, কামরুল হাসান আহবায়ক মীরসরাই পৌরসভা যুবদল, বোরহান উদ্দিন সবুজ মীরসরাই পৌরসভা যুবদলের সদস্য সচিব, ফরহাদ হোসেন তুহিন আহবায়ক মীরসরাই পৌরসভা সেচ্ছাসেবক দল, মাঈনুদ্দিন মাহমুদ সদস্য মীরসরাই উপজেলা বিএনপি, জাহিদুল আফসার জুয়েল সভাপতি চট্রগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রদল, গিয়াস উদ্দিন ইউনিয়ন যুগ্ম আহবায়ক মীরসরাই উপজেলা বিএনপি, তোফায়েল আহমেদ যুগ্ম আহবায়ক ১৩নং মায়ানী ইউপি বিএনপি, দিদারুল আলম মিয়াজী আহ্বায়ক বারৈয়ারহাট পৌরসভা বিএনপি, শওকত আকবর সোহাগ যুগ্ম সম্পাদক চট্রগ্রাম উত্তর জেলা যুবদল, সিরাজুল ইসলাম আহবায়ক জোরারগঞ্জ থানা যুবদল, সাংগঠনিক সম্পাদক চট্রগ্রাম উত্তর জেলা যুবদল, সরোয়ার উদ্দিন সেলিম আহবায়ক চট্রগ্রাম উত্তর জেলা সেচ্ছাসেবক দল, ওমর শরিফ আহবায়ক মীরসরাই উপজেলা সেচ্ছাসেবক দল, শাহ ফোরকান সদস্য সচিব মীরসরাই উপজেলা সেচ্ছাসেবক দল, সারোয়ার হোসেন রুবেল আহবায়ক মীরসরাই উপজেলা ছাত্রদল, গোলাম আকবর খন্দকার আহবায়ক চট্রগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপি, আব্দুল আওয়াল চৌধুরী সদস্য চট্রগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপি ৩২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ৪০/৫০ জনকে আসামী করা হয়েছে।

আরো পড়ুন