শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২

লকডাউনে যেসব নির্দেশনা দেয়া হয়েছে

প্রকাশিত: রবিবার, এপ্রিল ৪, ২০২১

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা

সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আগেই ঘোষণা দেন সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে দেশব্যাপী লকডাউন কার্যকর করা হব। তবে সরকারি প্রজ্ঞাপনে বিষয় হিসেবে উল্লেখ আছে ‘করোনাভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯-এর বিস্তার রোধকল্পে শর্ত সাপেক্ষে সার্বিক কার্যাবলি/চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ’।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, গত ২৯ মার্চ প্রকাশিত ১৮ দফা নির্দেশনার অনুবৃত্তিক্রমে আগামী ৫ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ১১ এপ্রিল রাত ১২ টা পর্যন্ত পালনের জন্য নিম্নেলিখিত নির্দেশনা প্রদান করা হলো-

নির্দেশনা গুলা হলো-

ক. সব প্রকার গণপরিবহন (সড়ক, নৌ, রেল ও অভ্যন্তরীন ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে। তবে পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা, জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এই আদেশ প্রযোজ্য হবে না। এছাড়া বিদেশগামী/বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের জন্য এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে না।


খ. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিষেবা , যেমন-ত্রাণ পরিবহন, স্বাস্থ্য সেবা, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরসমূহের (স্থলবন্দর, নদীবন্দর, সুমদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বহির্ভূত থাকবে।


গ. সকল সরকারি/বেসরকারি/স্বায়ত্বশাসিত অফিস ও আদালত এবং বেসরকারি অফিস কেবল জরুরি কাজ সম্পাদনের জন্য সীমিত পরিসরে প্রয়োজনীয় জনবলকে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় অফিসে আনা-েনেয়া করতে পারবে। শিল্প কারখানা ও নির্মাণ কাজ চালু থাকবে। তাদেরকে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় আনা-নেওয়া করতে হবে। বিজিএমইএ ও বিকেএমই কর্তৃক শিল্প কারখানার এলাকার নিকটবর্তী সুবিধাজনক স্থানে তাদের শ্রমিকদের জন্য ফিল্ড হাসপাতাল/চিকিৎসা ব্যবস্থা করতে হবে।


ঘ. সন্দ্যা ৬ টা থেকে ভোর ৬ টা পর্যন্ত অতি জরুরি প্রয়োজন ব্যতিত (ঔষধ ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ইত্যাদি) কোনো ভাবেই বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না।


ঙ. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। কোন অবস্থাতেই হোটেল-রেস্তোরাঁয় বসে খাবার গ্রহণ করা যাবে না।


চ. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকানসমূহ বন্ধ খাকবে। তবে দোকানসমূহ পাইকারি ও খুচরা পণ্য অনলাইনে-এর মাধ্যমে ক্রয়-বিক্রয় করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে অবশই স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে এবং কোনো ক্রেতা স্বশরীরে যেতে পারবেন না।


ছ. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে।


জ. ব্যাংকিং ব্যবস্থা সীমিত পরিসরে চালু রাখার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিবে।


ঝ, স্বশস্ত্র বাহিনী বিভাগ ঢাকায় সুবিধাজনক স্থানে ফিল্ড হাসপাতাল স্থাপনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিবে।


ঞ. সারাদেশে জেলা ও মাঠ প্রশাসন উল্লেখিত নির্দেশনা বাস্তবায়নে কার্যকর পদক্ষেপ নিবে।

আরো পড়ুন