বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২

মীর হেলালের বিরুদ্ধে মামলা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত দাবি ইউট্যাবের

প্রকাশিত: সোমবার, এপ্রিল ২৬, ২০২১

বিএনপির জাতীয় কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি ও আন্তর্জাতিক কমিটির সদস্য, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের আইনজীবী প্যানেলের অন্যতম সদস্য ব্যারিস্টার মীর হেলালের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের হাটহাজারি থানায় মামলা দায়েরের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সংগঠন ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিশেন অব বাংলাদেশ- ইউট্যাব এর ৬২৫ জন শিক্ষক।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) এক বিবৃতিতে শিক্ষকেরা বলেন, বর্তমান সরকার মহামারী করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ওপর নিপীড়ন নির্যাতন চালাচ্ছে।

তারা তাদের ব্যর্থতার সমালোচনাও সহ্য করছে না। দেশে বিরোধী দলগুলোকে স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে দেয়া হচ্ছে না।

করোনার সংক্রমণের কারণে বিএনপির কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচী নেই। তবুও বিএনপি নেতাকর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে নানাভাবে।

যার প্রমাণ গত বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল, ২০২১) চট্টগ্রামের হাটহাজারি থানায় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মীর হেলাল সহ বিএনপির স্থানীয় অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করা।

শিক্ষকেরা বলেন, সম্পূর্ণ মিথ্যা ও পরিকল্পিত এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে চট্টগ্রামের হাটহাজারিতে ব্যারিস্টার মীর হেলালের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।
আসলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের লাগামহীন লুটপাট ও দুর্নীতির ব্যর্থতা ঢাকতেই এ ধরনের মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে বলে দেশের মানুষ মনে করে।

আমরা শিক্ষক সমাজ অবিলম্বে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মীর হেলাল সহ বিএনপি স্থানীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে এ ধরনের মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা প্রত্যাহার এবং দেশে ন্যায় বিচার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য সরকারকে আহ্বান জানাচ্ছি।

বিবৃতিদাতাদের অন্যতম হলেন- ইউট্যাবের সহসভাপতি অধ্যাপক ড. আশরাফুল ইসলাম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান, ড. এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. আখতার হোসেন খান, ড. ফরিদ আহমেদ, অধ্যাপক ড. আবদুর রশিদ, অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম মজুমদার, অধ্যাপক লুৎফর রহমান, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান খান, অধ্যাপক ড. আল মোজাদ্দেদী আলফেছানী, ড. গোলাম রব্বানী, ড. মাহফুজুল হক, ইসরাফিল প্রামাণিক রতন, ড. সিদ্দিক আহমদ চৌধুরী (চবি), ড. এম এ বারি মিয়া, অধ্যাপক খায়রুল (শাবিপ্রবি), ড. শামসুল আলম সেলিম (জাবি), ড. সাব্বির মোস্তফা খান (বুয়েট) ও অধ্যাপক তোজাম্মেল (ইবি) প্রমুখ।

আরো পড়ুন