শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২

‘টিনুর রাজনীতি করতে হবে চকবাজারে থাকতে হলে’-চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ

প্রকাশিত: মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২২

নগর প্রতিবেদক::

‘চকবাজারে থাকতে হলে টিনু ভাইয়ের রাজনীতি করতে হবে আর চট্টগ্রাম কলেজে পড়লে সুভাষ দাদার সাথে করতে হবে। এখানে আর কারো কোনো রাজনীতি করা যাবে’ এভাবেই নবাগত শিক্ষার্থীদের চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগেগর সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মল্লিক সবুজের অনুসারীরা হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম।

আজ মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রাম কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম ও সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মল্লিক সবুজ গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দুইজনেই শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী। তবে উপ-গ্রুপে গিয়ে সভাপতি সাবেক যুবলীগ নেতা হেলাল আকবর চৌধুরী বাবরের অনুসারী ও সাধারণ সম্পাদক চকবাজার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নুর মোস্তফা টিনুর অনুসারী।

আহতরা হলেন- সাফায়েত হোসেন রাজু (গণিত চতুর্থ বর্ষ), হামিম রাফসান (এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষ), জাহেদুল অভি (ইসলামের ইতিহাস দ্বিতীয় বর্ষ), ওয়াহিদুল রহমান সুজন (স্নাতক তৃতীয় বর্ষ), আলিফ জাবেদ (ইতিহাস প্রথম বর্ষ), জিয়াউদ্দিন আরমান (সমাজবিজ্ঞান মাস্টার্স), নাঈম আসিফ ( ইতিহাস মাস্টার্স) ও মোহাম্মদ মনির (ইতিহাস চতুর্থ বর্ষ)।

চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম জানান, ফাস্ট ইয়ারের শিক্ষার্থীদের সাধারণ সম্পাদকের অনুসারীরা তাদের মিছিলে ডাকলে তারা যায়নি। তারা বলেছে, আমরা মাহমুদুল করিম ভাইয়ের ছোট ভাই। আমার নাম নেওয়ার পর সবুজের অনুসারীরা তাদেরকে মারধর করে এবং বলে চকবাজারে থাকতে হলে টিনু ভাইয়ের রাজনীতি করতে হবে আর চট্টগ্রাম কলেজে পড়লে সুভাষ দাদার সাথে করতে হবে। এখানে আর কারো কোনো রাজনীতি করা যাবে না।

তিনি বলেন, সামনে মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি গঠন হতে পারে। তার জন্য ওরা আমাকে এবং আমার সাথে যারা রাজনীতিত করে তাদের উপর উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে হামলা করছে। যেন আমার কর্মীরাও হামলা করে এবং আমাকে বেকায়দা ফেলতে পারে।

এ বিষয়ে কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মল্লিক সবুজের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইল বন্ধ থাকার কারণে তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

জানতে চাইলে চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনজুর কাদের জানান, ছোট্ট ঘটনা নিয়ে তাদের মধ্যে এ ঘটনা ঘটেছে। আমি ঘটনাস্থলে থাকার সময় ২-৩জন আহত দেখেছি। এখন হয়তো আরো বেড়েছে। তবে এখনো এ ঘটনায় কেউ কোন লিখিত অভিযোাগ করেনি।

আরো পড়ুন