সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২

জ্বর-কাশি নেই খালেদার, অবস্থা উন্নতির দিকে

প্রকাশিত: সোমবার, এপ্রিল ১৯, ২০২১

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অবস্থা আরও উন্নতি হয়েছে। তার জ্বর, কাশি নেই। এছাড়া অন্য কোনো ধরনের উপসর্গ নেই বলেও জানিয়েছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা।

সোমবার (১৯ এপ্রিল) খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক দলের সদস্য অধ্যাপক এফ এম সিদ্দিকী গণমাধ্যমকে এই কথা জানান।

তিনি বলেছেন, ‘খালেদা সুস্থই আছেন, তবে যেহেতু দ্বিতীয় সপ্তাহ চলছে, আজ গিয়ে হলো ১১তম দিন, আর এই সময়টা করোনা আক্রান্তদের জন্য একটু বিপজ্জনক, তাই আমরাও ক্লোজ মনিটরিংয়ে রেখেছি।

চিকিৎসক আরও জানান, ‘দুদিন আগে ওনার অল্প তাপমাত্রা ছিল। কাল রাত থেকে এখন অবধি জ্বর নেই, কাশিও নেই। এমন অবস্থায় টানা ৪৮ ঘণ্টা থাকলে আমরা নিশ্চিত হতে পারব যে তিনি কোভিড থেকে বের হয়ে আসছেন। আশা করছি, এই সপ্তাহটাও উনি ভালোভাবে পার করতে পারবেন।’

এফ এম সিদ্দিকী আরও বলেন, ‘ওনার খাওয়াদাওয়া আগের মতোই আছে। রুচি আছে। মানসিকভাবেও তিনি সুস্থ আছেন। আমাদের ওপর ভরসা রেখেছেন। উনি হাঁটাহাঁটি করছেন। ব্লাড সুগারসহ অন্য যে প্যারামিটার সবগুলো মনিটর করছি আমরা সর্বক্ষণ। রিপোর্টগুলো সব ভালো আছে।’

গত ১১ এপ্রিল খালেদা জিয়ার করোনার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। গুলশানের বাসভবন ফিরোজাতেই বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিৎসা চলছে। খালেদা জিয়া ছাড়াও তার বাসভবনের  আট জন করোনাক্রান্ত হন। কবে কারও অবস্থাই গুরুতর নয়।

চিকিৎসার অংশ হিসেবে গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে সিটি স্ক্যান করানোর হয় খালেদা জিয়ার। তাতে দেখা যায়, খালেদার জটিল কোনো সমস্যা নেই। শুরু থেকেই চিকিৎসক এফএম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা চিকিৎসা করছেন।

৭৫ বছর বয়সী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডিত। দণ্ড নিয়ে তিন বছর আগে তাকে কারাগারে যেতে হয়। দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু পর পরিবারের আবেদনে সরকার গত বছরের ২৫ মার্চ ‘মানবিক বিবেচনায়  সরকার শর্তসাপেক্ষে  নির্বাহী আদেশে তাকে সাময়িক মুক্তি দেয়। বর্তমানে তিনি জামিনে আছেন।

তখন থেকে তিনি গুলশানে নিজের ভাড়া বাসা ফিরোজায় থেকে ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে রয়েছেন খালেদা জিয়া। তার সঙ্গে বাইরের যোগাযোগ সীমিত।

আরো পড়ুন