বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২

চমেকে সংঘর্ষ: নওফেল অনুসারীর মামলায় আসামী নাছির অনুসারী লিমনসহ ১৮ জন

প্রকাশিত: শুক্রবার, এপ্রিল ৩০, ২০২১

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট :

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংগঠিত ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় সিআরবি জোড়া খুন মামলার আসামী বহিরাগত সাইফুল আলম লিমনসহ ১৮ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার নগরীর পাঁচলাইশ থানায় চমেকের পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থী রিয়াজুল ইসলামজয় বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভূঁইয়া।

রিয়াজুল ইসলাম জয় শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল অনুসারী হিসেবে চমেকে পরিচিত। তাঁর মামলায় ১৮ জনের নাম উল্লেখ করে ১৫-২০ জনকে অজ্ঞাত আসামী করা হয়েছে।

যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে তারা হলেন চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা. মো. হাবিবুর রহমান, আল আমিন ইসলাম শিমুল, ডা. ওসমান গণি, ডা. অতন্দ্র আকাশ, ডা. এ এল এম এস শাহরিয়ার, ডা. মাসুম বিল্লাহ মাহিন, সাইফুল আলম লিমন, ফরিদ আহাম্মদ, সুজয়মান বড়ুয়া জিতু, আলাউদ্দিন আলো, শাহরিয়ার মো. রাহাতুল ইসলাম, মিনহাজ আরমান লিখন, মাহাদী বিন হাসিম, ডা. তাজওয়ার রহমান অয়ন, পল্লব বিশ্বাস, মো. ইফরাইন ও রবিউল হোসেন।

এর মধ্যে বহিরাগত হিসেবে এ মামলায় আসামী করা হয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসম্পাদক সাইফুল আলম লিমন, তার সহযোগী ফরিদ আহমেদ, সুজয়মান বড়ুয়া জিতুকে। এছাড়াও আলাউদ্দিন আলো ও রবিউল হোসেন। এ মামলার আসামীরা সবাই সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী।

গত মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সন্ধ্যার পর থেকে চমেক ক্যাম্পাসে ও ছাত্রাবাসে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, হাতাহাতি ও মারামারি হয়। এতে অন্তত পাঁচ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে দু’জন ইন্টার্ন চিকিৎসকও ছিলেন। সংঘাতে জড়িত দুই গ্রুপ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এবং সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত।


এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে চমেক ছাত্রলীগের সভাপতি সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী হিসাবে পরিচিত ডা. মো. হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন।

হাবিবের করা মামলার আসামিরা শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী। আসামী যাদের করা হয়েছে তারা অনেকে চমেকের শিক্ষার্থীও নয়।

যারা আসামী হলেন তাদের মধ্যে চমেক ছাত্রলীগের নওফেল অনুসারী হিসাবে পরিচিত অভিজিৎ দাশ, মুশফিকুর ইসলাম আরাফ, মো. রিয়াজুল ইসলাম, তৌফিকুর রহমান, সৌমিক বড়ুয়া, আতাউল্লাহ বুখারী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এইচ এম ফজলে রাব্বি সুজন, চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মল্লিক সবুজ, চকবজার ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ইভান, চকবাজার থানা ছাত্রলীগের রবিউল ইসলাম রাজু, ইয়াসিন আওরাজ ভূঁইয়া রওনক প্রকাশ ভূঁইয়া রনক, মোহাম্মদ হানিফ ও জিয়াউদ্দিন আরমান।

উল্লেখিত আসামীরা নগরীর রাজনীতিতে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী হিসাবে পরিচিত।

আরো পড়ুন