রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩

কক্সবাজারে বিপন্ন প্রজাতির দুটি ভাল্লুক শাবক উদ্ধার

প্রকাশিত: শনিবার, জানুয়ারী ২১, ২০২৩

জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার :

দীপক দাস দীর্ঘদিন ধরে বান্দরবান সিমান্ত হয়ে মায়ানমার থেকে চোরাইপথে অবৈধভাবে আমদানি নিষিদ্ধ বিপন্ন বণ্যপ্রাণী বাংলাদেশে নিয়ে এসে হেফাজতে রাখে এবং পরে মোটা অংকের বিনিময়ে সাতক্ষীরা এবং যশোর সিমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে ভারতে পাচার করে। এর আগেও পাচারকারী চক্রটি দুটি ভাল্লুক, দুটি উল্লুক ও ছয়টি লজ্জাবতী বানর পাচার করেছে।

কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভার পানখালী থেকে আন্তর্জাতিক বণ্যপ্রাণী পাচারচক্রের এই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। এসময় দু’টি বিপন্ন প্রজাতির ভাল্লুক শাবক উদ্ধার করা হয়।

গেলো বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান চালিয়ে দীপক দাস নামের আন্তর্জাতিক বণ্যপ্রাণী পাচারচক্রের সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়।

শনিবার সকালে কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়ে পুলিশ সুপার মোঃ মাহফুজুল ইসলাম বলেন, বনাঞ্চলে থেকে বিপন্ন প্রজাতির বণ্যপ্রাণীগুলোকে কোনভাবেই পাচার করতে দেওয়া যাবে না। বণ্যপ্রাণীগুলো দেশের সম্পদ। এই সম্পদ রক্ষায় এবং তাদের বিচরণ নির্বিঘ্ন করার জন্য পুলিশ দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।

কিন্তু ভারতে পাচারের খবরটি পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের ওয়াইল্ড লাইফ ক্রাইম কন্ট্রোল ইউনিটের কাছে আসে ১৬ জানুয়ারি। সেটি কক্সবাজার জেলা পুলিশকে জানালে এই অভিযান পরিচালনা কর ভাল্লুক দুটি উদ্ধার করা হয়। ইউটনিটের ওয়াইল্ড লাইফ ইন্সপেক্টর আব্দুল্লাহ আস সাদিক জানান, দীপক দাসকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা যায় তারা সারাদেশে বৃহৎ একটি চক্র। এই চক্রকে ধরতে পারলেই পাচার বন্ধ করা সম্ভব।

গ্রেফতার দীপক দাসের বিরুদ্ধে চকরিয়া থানায় মামলা করা হয়েছে বলেও জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

আয়াছুল/ নগর নিউজ

আরো পড়ুন