বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২

ইন্দিরা গান্ধী মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে ক্যাম্পে ঘুরেছেন : মেয়র

প্রকাশিত: শনিবার, নভেম্বর ১৯, ২০২২

নগর প্রতিবেদক::

সিটি মেয়র এম রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে ক্যাম্পে ঘুরেছেন, মমতাময়ী মায়ের মতো বুকে জড়িয়ে ধরেছেন, নিজ হাতে আহত অনেক মুক্তিযোদ্ধাকে ওষুধ খাইয়েছেন।

আজ শনিবার (১৯ নভেম্বর) সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের এস রহমান হলে আয়োজিত ইন্দিরা গান্ধীর ১০৬তম জন্মদিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র বলেন, ৭১ সালে শক্তিশালী পাকিস্তানি সেনা বাহিনীকে মোকাবেলা করা নিরস্ত্র বাঙালিদের জন্য খুব সহজ ছিলো না। কিন্তু অস্ত্র সরবরাহ ছাড়াও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে এবং আশ্রয় প্রদানের সঙ্গে সঙ্গে বিদেশি জনমত গড়ে তুলেছিলেন শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী। তাই একাত্তরে তাঁর অবদানের কথা ভুলে গেলে আমাদের চলবে না। সেই সময় ভারত সরকারের প্রত্যক্ষ সহযোগিতা ছাড়া মাত্র নয় মাসে বিজয় সহজ হতো না।

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাসের সভাপতিত্বে এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ। যুগ্ম সম্পাদক নজরুল ইসলামের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশেম, চট্টগ্রমে প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ সভাপতি সালাউদ্দিন মো: রেজা, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন এবং সিইউজে’র সাধারণ সম্পাদক ম. শামসুল ইসলাম।

সভাপতির বক্তব্যে আলহাজ্ব আলী আব্বাস বলেন, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব বরাবরই রাষ্ট্রীয় এবং সামাজিক উন্নয়নে সহযোগী হিসেবে কাজ করে চলেছে। মহান মুক্তিযুদ্ধে সহায়তাদানকারী বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু রাষ্ট্র ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী। তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে গত বছর থেকে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের উদ্যোগে এই অনুষ্ঠান আয়োজন করা হচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবারও এই আয়োজন। চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী এবং মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ লালন করে, ধারণ করে। শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী এক কোটি শরণার্থীকে নিজ দেশে আশ্রয় দিয়েছেন-খাইয়েছেন। একইসঙ্গে এক লাখের অধিক মুক্তিযোদ্ধাকে নিজ দেশে আশ্রয় দিয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন বলে আমরা নয় মাসে স্বাধীন বাংলাদেশ পেয়েছি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি অঞ্জন কুমার সেন, রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, প্রেস ক্লাবের সহ সভাপতি স ম ইব্রাহীম, সিইউজে’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক নির্মল চন্দ্র দাশ, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের অর্থ সম্পাদক রাশেদ মাহমুদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক নাসির উদ্দিন হায়দার, ক্রীড়া সম্পাদক দেবাশীষ বড়ুয়া দেবু, গ্রন্থাগার সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী, সমাজসেবা ও আপ্যায়ন সম্পাদক মো. আইয়ুব আলী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলীউর রহমান, কার্যকরী সদস্য শহীদুল্লাহ শাহরিয়ার, দেবদুলাল ভৌমিক, মনজুর কাদের মনজু, মহসিন চৌধুরী, বিএফইউজ’র সাবেক যুগ্ম মহাসচিব আসিফ সিরাজ প্রমুখ

আরো পড়ুন